মিসবাহ-ইউনিসকে আইসিসির অভিনন্দন

 বর্ণাঢ্য ক্রিকেট ক্যারিয়ারের জন্য পাকিস্তানের সদ্য সাবেক হওয়া দুই ক্রিকেটার মিসবাহ-উল-হক এবং ইউনিস খানকে অভিনন্দন জানিয়েছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজে ডমিনিকা টেস্ট শেসে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে বিদায় নিলেন এই দুই গ্রেট। অবিস্মরণীয় জয় দিয়েই শেষ হলো তাদের বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ার। মিসবাহ-ইউনিসের বিদায়ী টেস্টে ১০১ রানে পাকিস্তান জয় পায় । ফলে ৩ ম্যাচের সিরিজ ২-১ ব্যবধানে নিজেদের করে নেয় মিসবাহ বাহিনী। ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে এটাই প্রথমবার পাকিস্তানের টেস্ট সিরিজ জয়।

দুজনের প্রশংসা করে আইসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডেভিড রিচার্ডসন বলেন, “এই দুই ব্যাটসম্যান ক্রিকেটের জন্য নিজেদের সেরাটাই উজার করে দিয়েছেন। আনন্দ দেয়ার চেষ্টা করেছেন সমর্থকদের। “ 

৭৫ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে ১০ সেঞ্চুরি ও ৩৯ হাফ সেঞ্চসহ মোট ৫২২২ রান করেছেন মিসবাহ। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে ১৬২টি ওয়ানডেতে সেঞ্চুরি না থাকলেও ৪২টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ডান হাতি এ ব্যাটসম্যানের সংগ্রহ ৫১২২ রান। ২০১৬ সালে আইসিসির স্পিরিট অব ক্রিকেট অ্যাওয়ার্ড জিতেছিলেন মিসবাহ। 

অন্যদিকে টেস্টে ১১৮ ম্যাচে ৩৪ সেঞ্চুরি ও ৩৩টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ১০০৯৯ রান করেছেন ইউনিস। ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৩১৩ রানের ইনিংস। এছাড়া ২৬৫ ওয়ানডেতে ৭২৪৯ ও ২৫টি-২০ ম্যাচে ৪৪২ রান আছে ইউনিসের। তার নেতৃত্বে ২০০৯ সালে পাকিস্তান একবারই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয় করে। 

শুধু ব্যাট হাতেই নয়, অধিনায়ক হিসেবেও দুজন পেয়েছেন সেরা সাফল্য। মিসবাহ-ইউনিসের পুরো ক্যারিয়ারের পারফরমেন্সের প্রশংসা করে আইসিসির প্রধান নির্বাহি রিচার্ডসন বলেছেন, “পাকিস্তানের হয়ে দুর্দান্ত সব ইনিংস খেলেছেন মিসবাহ। কঠিন সময়ে দারুণ সব ইনিংস খেলে পাকিস্তানকে বিপদ থেকে টেনে তুলেছেন তিনি। কীভাবে রান করতে হয় মিসবাহ সেটা জানেন। ২০১৪ সালে আবুধাবিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৫৬ বলে সেঞ্চুরিটি ছিলো অসাধারণ। রেকর্ডে স্যার ভিভ রিচাডর্সের পাশে নাম লিখিয়েছেন মিসবাহ। অধিনায়ক হিসেবেও কঠিন সময়ে দলের দায়িত্ব নেন এবং যোগ্য নেতা হিসেবেই সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তার অধীনেই পাকিস্তান টেস্টের শীর্ষে উঠেছিলো। সে একজন সত্যিকারের ক্রিকেটার এবং ক্রিকেটের ‘রোল মডেল’। ”

মিসবাহর মত ইউনিসের প্রশংসাও করেছেন রিচার্ডসন। তিনি বলেছেন, “ইউনিস পাকিস্তানের সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন। সবসময় নিজের সেরাটাই দিয়েছে সে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ট্রিপল ও ভারতের বিপক্ষে ডাবল সেঞ্চুরি, ইউনিসকে সেরা ব্যাটসম্যানের খেতাবই দিয়েছে। স্পিন বোলিংয়ের সামনে দুর্দান্ত এক ব্যাটসম্যান ইউনিস। অধিনায়ক হিসেবে তিনি পরীক্ষিত। তিন ফরম্যাটেই পাকিস্তানকে ভালো সাফল্য এনে দিয়েছেন তিনি। তার নেতৃত্বে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপাও জয় করেছিলো পাকিস্তান। অসাধারণ ক্যারিয়ারের জন্য এই দুই ব্যাটসম্যানকে আমি আইসিসির পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানাই। আগামী বছরগুলোতেও তাদের কর্মের সাফল্য কামনা করি। “

loading...