বাংলাদেশে গুম বন্ধের আহ্বান জাতিসংঘ বিশেষজ্ঞ গ্রুপের

বাংলাদেশে ক্রমান্বয়ে বাড়তে থাকা গুমের ঘটনা বন্ধে সরকারকে এখনই পদক্ষেপ নেবার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘের একটি কর্ম গ্রুপ।




সব কিছুর আপডেট পেতে চোখ রাখুন আমাদের ফেইসবুক পেইজে!!
অনুগ্রহ পুর্বক নিচের লাইক বাটনে ক্লিক করুন।

 

জোর করে বা অনিচ্ছাকৃত নিখোঁজ (গুম) হওয়ার বিষয়ে গঠিত জাতিসংঘের ওই কর্ম গ্রুপ বলেছে, গত কয়েক বছরে বিচ্ছিন্ন কয়েকটি গুমের ঘটনা থেকে সংখ্যাটি এখন ৪০ ছাড়িয়ে গেছে। গুমের সংখ্যা বেড়েই চলেছে।


গত বছরের আগস্টে বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনী তিনজনকে অপহরণের পরিপ্রেক্ষিতে গুম বন্ধে জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা সরকারের প্রতি এ আহ্বান জানিয়েছেন।

গত শুক্রবার জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারের দফতরের ওয়েবসাইটে এ বিজ্ঞপ্তিতি দেখা যায়।



এতে বলা হয়েছে, নিরপেক্ষ প্রতিবেদনগুলোতে বেশ কিছু গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, বিশেষ করে বাংলাদেশ সরকারের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ঘটনাগুলোর জন্য র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে (র‌্যাব) দায়ী করা হয়েছে।

ঢাকায় পৃথক ঘটনায় সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরী, মীর কাশেম আলীর ছেলে মীর আহমেদ বিন কাসেম ও গোলাম আযমের ছেলে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আবদুল্লাহহিল আমান আজমী নিখোঁজ রয়েছেন। তারা বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সম্পৃক্ত।



তাদের তিনজনের বাবারা একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে দোষী সাব্যস্ত হন। বিচারের কাজ চলার সময় নিখোঁজরা নিজের বাবাকে রক্ষায় চেষ্টা ও প্রচারণা চালাচ্ছিলেন।

loading...



জাতিসংঘের কর্ম গ্রুপটি অবিলম্বে এই তিনজন ছাড়াও গুম হওয়া অন্যরা কোথায় আছেন, তা সরকারের কাছে জানতে চেয়েছে।

মানুষকে জোর পু্র্বক নিখোঁজ হওয়া থেকে সুরক্ষা দিতে জাতিসংঘের ১৯৯২ সালের ঘোষণা বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সরকারকে সহযোগিতার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে জাতিসংঘের কর্ম গ্রুপটি।

সব কিছুর আপডেট পেতে চোখ রাখুন আমাদের ফেইসবুক পেইজে ।।

আরও জানতে VIDEO টি দেখুন.চানেলটি SUBSCRIBE করতে ভুলবেননা PLEASE::

loading...