কুসিক নির্বাচনে ১২টি অনিয়ম : ইডব্লিউজি

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) নির্বাচনে ১২টি অনিয়ম উঠে এসেছে বলে জানিয়েছে নির্বাচন পর্যবেক্ষক জোট ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ (ইডব্লিউজি)।
সব কিছুর আপডেট পেতে চোখ রাখুন আমাদের ফেইসবুক পেইজে!!
অনুগ্রহ পুর্বক নিচের লাইক বাটনে ক্লিক করুন।

আজ শনিবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে কুসিক নির্বাচন পর্যবেক্ষণ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটি এ তথ্য জানায়।

তাদের পর্যবেক্ষণে অনিয়মগুলো হলো- আচরণবিধি লঙ্ঘন করে ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে যেতে প্রার্থী কর্তৃক যানবাহনের সুবিধা প্রদান, ভোটকেন্দ্রের ভেতরে সহিংসতার ঘটনা। ভোটকেন্দ্রের বাইরে সহিংসতার ঘটনা চারটি। গ্রেফতারের ঘটনা। ভোটকেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা। বন্ধ ঘোষিত ভোটকেন্দ্রে পুনরায় ভোট গ্রহণের ঘটনা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সংস্থার পরিচালক ড. আবদুল আলীম বলেন, ছোট খাটো কিছু অনিয়ম ও সহিংসতা সত্বেও ইডব্লিউজি মনে করে যে, কেএম নুরুল হুদার নেতৃত্বে পরিচালিত ১২তম নির্বাচন কমিশনের জন্য একটি শুভ সূচনা। বড় ধরনের কোনো ঘটনা ছাড়াই অনুষ্ঠিত হয়েছে কুসিক নির্বাচন। এই নির্বাচনে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের নিরপেক্ষতা বজায় রেখে দক্ষতা ও পেশাদারিত্বে সাথে কাজ করতে দেখা গেছে। ভোটাররাও সুশৃঙ্খলভাবে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

সংস্থাটির পর্যবেক্ষন পদ্ধতির বিষয়ে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, কুসিকের ১০৩টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় নিয়ে ৩৮টি ভোট কেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করেছে ইডব্লিউজি। প্রতিটি কেন্দ্রে সংস্থাটির একজনকে সদস্য দায়িত্ব পালন করেছে বলে জানানো হয়। নির্বাচন কমিশন থেকে প্রকাশিত ভোটকেন্দ্রের পূর্ণাঙ্গ তালিকা থেকে দৈবচয়ন পদ্ধতির ভিত্তিতে এসব কেন্দ্র বাছাই করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোট গ্রহণের জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম প্রস্তুত ছিল এবং নির্ধারিত সময়েরই ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। ভোট গ্রহণ শুরুর সময় পর্যবেক্ষণকৃত ৯৪ শতাংশ কেন্দ্রেই ভোটারদের লম্বা লাইন দেখা গেছে।

সংস্থাটি জানায়, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দিনের শুরুর দিকে ভোটগ্রহণ কার্যক্রম শান্তিপূর্ণ ছিল। একই সাথে পর্যবেক্ষণকৃত সব কেন্দ্রেই প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের প্রার্থীদের পোলিং এজেন্টরাও উপস্থিত ছিলেন। ৭৯ শতাংশ কেন্দ্রেই প্রতিবন্ধী ভোটারদের প্রবেশ উপযোগী ছিল।

সংস্থাটি জানায়, কুমিল্লার এই নির্বাচনে সকাল ১০টা পর্যন্ত ২২ শতাংশ দুপুর ১টা পর্যন্ত ৫১ শতাংশ, তিনটা পর্যন্ত ৬০ শতাংশ এবং বিকেল পর্যন্ত ৬২.৭ শতাংশ ভোট পড়েছে।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, সকালের দিকে ভোট কেন্দ্রগুলোতে কোনো সহিংসতা বা অনিয়মের কোনো ঘটনা ঘটেনি। কিন্তু বিকেলের দিকে ১৫.৮ শতাংশ ভোটকেন্দ্রে কিছু অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়। ভোট গণনা চলাকালে কোনো প্রকার সহিংসতা বা অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়নি।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের বিষয়ে সার্বিক মূল্যায়ন জানতে চাইলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সার্বিকভাবে নির্বাচন ভালো হয়েছে। এই নির্বাচনে কমিশনের নিজস্ব পর্যবেক্ষক নিয়োগ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরাও নির্বাচন চলাকালীন ভালোভাবেই নিজেদের দায়িত্ব পালন করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জানিপপের চেয়ারপারসন অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লা, ইডব্লিউজির পরিচালক আবদুল আউয়াল প্রমূখ।

উল্লেখ্য, ৩০ মার্চ অনুষ্ঠিত দলীয় প্রতীকের প্রথম নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন বিএনপি সমর্থক প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু।

loading...

সব কিছুর আপডেট পেতে চোখ রাখুন আমাদের ফেইসবুক পেইজে ।।

আরও জানতে VIDEO টি দেখুন.চানেলটি SUBSCRIBE করতে ভুলবেননা PLEASE::

loading...