আওয়ামী লীগ সেক্যুলার দল নয়, পিকুলিয়ার দল : রিজভী

জোর করে ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগের ধর্ম মন্তব্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্মমহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, আওয়ামী লীগ সেক্যুলার দল নয়, তারা হচ্ছে পিকুলিয়ার দল। কারণ, এরা যেকোনো সময় নিজের স্বার্থে কাজ করতে পারে। ক্ষমতাসীন সরকারকে ভোটারবিহীন সরকার আখ্যা দিয়ে তিনি আজ এক মানববন্ধনে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বলেন, সেক্যুলারিজম বা অন্য ধর্মের প্রতি তাদের কোনো মত নেই, তাদের একটাই ধর্ম, তারা জোর করে ক্ষমতায় থাকবে।

একই কর্মসূচিতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, সরকারের অক্ষমতা ও অব্যবস্থাপনার কারণে মিয়ানমার কর্তৃক বারবার বাংলাদেশের আকাশসীমা লঙ্ঘন ও চালের দাম সীমা অতিক্রম করেছে।

দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের কেরাণীগঞ্জের বাড়িতে আসন্ন দুর্গাপূজার প্রস্তুতি সভায় হামলার প্রতিবাদে এ মানববন্ধনের আয়োজন করে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি।

রাজধানীতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, বরকত উল্লাহ বুলু, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. সুকোমল বড়ুয়া প্রমুখ।

বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে আরো অংশ নেন কেন্দ্রীয় নেতা জয়ন্ত কুমার কুন্ডু, আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম, রমেশ দত্ত, নিপুন রায় চৌধুরী, যুবদলের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যালবাট পি কস্তা প্রমুখ।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের বাড়িতে হামলার প্রসঙ্গ টেনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্মমহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ধর্মীয় অনুষ্ঠানের একটি আয়োজনে পুলিশ যে নগ্ন হামলা করেছে, এই হামলা আর রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সরকারের হামলার মধ্যে কি কোনো পার্থক্য আছে? তারা জাতিগত নির্মূল করছে, তারা রোহিঙ্গা মুসলমান ও হিন্দুদের অত্যাচার করছে। অং সান সু চির নিরাপত্তা বাহিনী আর শেখ হাসিনার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী একই কাজ করেছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড করছেন। অর্থাৎ বিরোধী মতকে লেভেল করে দিয়ে মাটির সাথে মিশিয়ে দিচ্ছেন তিনি। সেক্যুলারিজম বা অন্য ধর্মের প্রতি তাদের কোনো মত নেই, তাদের একটাই ধর্ম, তারা জোর করে ক্ষমতায় থাকবে। এর মধ্যে যদি কারো কাছ থেকে বিরোধী মত শোনে, তখন সেটিকে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বানানোর চেষ্টা শুরু করে।

সরকারের অক্ষমতার কারণে মিয়ানমার বারবার বাংলাদেশের আকাশসীমা লঙ্ঘন করছে মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, দেশে স্বাধীনতা থাকবে, এজন্য মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল। সীমান্তে হত্যা, ফসল কেটে নিয়ে যাচ্ছে, এজন্য মুক্তিযুদ্ধ করিনি। শুধুই লুটপাটের জন্য এই সরকার।

অব্যবস্থাপনার কারণে সারা বাংলাদেশের মানুষ কষ্টে আছে। চালের দাম সীমা অতিক্রম করেছে। সাধারণ গরিব মানুষ চাল কিনে খাওয়ার অবস্থায় নেই। সরকারি দলের গুণ্ডাপাণ্ডাদের হাতে গুম, খুন, নির্যাতন হামলা নিয়মিত হচ্ছে। চালের দাম সীমাহীন, যেখানে মিয়ানমার আমাদের জন্য বেশি দাম চাচ্ছে, সরকারের লোক সেখানে গিয়েছিল চাল কিনতে।

তিনি আরো বলেন, মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের হত্যা করছে। হাজার হাজার মানুষ বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। সেই মিয়ানমারে খাদ্যমন্ত্রী গেলেন চাল কিনতে। যদি বাধ্য হয়ে গিয়ে থাকেন, তাহলে তো তার স্ত্রীকে নিয়ে যাওয়ার কথা না। সস্ত্রীক তার এই আনন্দভ্রমণ এ সময়ে হওয়া কোনোমতেই উচিত হয়নি।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ক্ষমতাসীন সরকারের অধীনে বিরোধী দল নয়, সব ধর্মও বাধার সম্মুখীন হচ্ছে। কেউ এ সরকারের আমলে রাজনীতি করতে পারবে না, ধর্মও পালন করতে পারবে না। এসব করতে হলে তাকে আওয়ামী লীগ করতে হবে, এ পরিস্থিতি আসবে বলে মুক্তিযুদ্ধ করা হয়নি। মুসলমানদের ইফতারে বাধা, হিন্দুদের পূজায় বাধা, বৌদ্ধদের প্রার্থনায় বাধা, বিএনপিকে ত্রাণ দিতে বাধা দিচ্ছে সরকার।

loading...