আচমকা রাশিয়াকে লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়লো উত্তর কোরিয়া

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তীব্র মৌখিক সংঘাতের মধ্যে আচমকা রাশিয়ার দিকে তাক করে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ল উত্তর কোরিয়া। সে দেশের প্রেসিডেন্ট কিম জং উনের এই পদক্ষেপে কার্যত স্তম্ভিত আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞদের একাংশ। যদিও শেষ পাওয়া খবরে জানা গিয়েছে, ক্ষেপণাস্ত্রটি লক্ষ্যে আঘাত করার অনেক আগেই মাঝপথেই ধ্বংস হয়ে গিয়েছে।

ক্ষেপণাস্ত্রটি মাঝপথে ধ্বংস হয়ে গিয়েছে নাকি ইচ্ছা করেই সেগুলিকে আগেই নষ্ট করে দেওয়া হল, সে বিষয়ে কোনও স্পষ্ট উত্তর মেলেনি। এই খবর পাওয়ার পরই রাশিয়ার উত্তরভাগের এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমকে সজাগ করে দেওয়া হয় ও হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়।

মার্কিন গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, এদিন রাজধানী পিয়ংইয়ং থেকে মাঝারি পাল্লার ব্যালিস্টিক মিসাইল ছোড়া হয়েছে। মিসাইলটি সম্ভবত কে এন-১৭ ব্যালিস্টিক মিসাইল। কিন্তু ছোড়ার খানিকক্ষণের মধ্যেই জাপানের সমুদ্রে ভেঙে পড়ে ক্ষেপণাস্ত্রটি। মিসাইলটি উত্তর কোরিয়ার সীমান্ত থেকেও বেরোয়নি।

দ্য সিওল ইকোনমিক ডেইলিতে প্রকাশিত খবরে জানানো হয়েছে, মিসাইলটি রাশিয়ার উদ্দেশ্যে ছোড়া হলেও ৪৮ কিলোমিটার যাত্রাপথ পেরনোর পর ‘ধ্বংস’ করে দেওয়া হয়। ওই সংবাদপত্রের দাবি, মিসাইলটি যদি ধ্বংস না করে দেওয়া হত, তাহলে রুশ সেনার সামুদ্রিক ঘাঁটিতে আছড়ে পড়তে পারত।

রুশ প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা কমিটির প্রধান ভিক্টর ওজেরভ জানিয়েছেন, এই খবর পাওয়ার পরই দেশের উত্তরভাগের এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমকে সজাগ করে দেওয়া হয় ও হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়। তৈরি রাখা হয় রুশ বিমানসেনাকেও। কয়েকদিন আগেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ইজ বৈঠকে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ককে আরও জোরদার করার বিষয়ে আলোচনা করেন। দুই দেশই একত্রে উত্তর কোরিয়ার আগ্রাসী মনোভাবের বিরুদ্ধে একযোগে কাজ করার ইঙ্গিত দেয়। সেই রাগেই কি কিম জং উনার এই পদক্ষেপ? প্রশ্নটা উঠতে শুরু করেছে আন্তর্জাতিক মহলে।

loading...