এস্তোনিয়া হয়ে উঠতে পারে অপনার বসবাসের জন্ন উত্তম জাএগা!!!

বাংলাদেশ থেকে উচ্চশিক্ষা নেয়ার জন্য অনেক ছাত্র-ছাত্রী বিদেশে পাড়ি জমায়। বেশীরভাগ ক্ষেত্রে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রথম পছন্দের তালিকায় থাকে অ্যামেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড কিংবা পশ্চিম ইউরোপ কিংবা স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলো।
সব কিছুর আপডেট পেতে চোখ রাখুন আমাদের ফেইসবুক পেইজে!!
অনুগ্রহ পুর্বক নিচের লাইক বাটনে ক্লিক করুন।

স্কলারশিপ নিয়ে পড়তে গেলে আসলে এসব দেশে পড়তে যাওয়াই যায়। তবে যারা টিউশন ফি দিয়ে এই সব দেশে পড়তে যান, তাদের জন্য একটা দীর্ঘ সময় ধরে পড়াশুনা চালিয়ে যাওয়া আসলে অনেক কষ্টসাধ্য ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। এছাড়াও আছে ভিসা সংক্রান্ত নানা ধরণের জটিলতা। তবে এরপরও ছাত্র-ছাত্রীরা এই সব দেশে পাড়ি জমায় ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে। তারা হয়তো মনে মনে ভেবে নেয়, ভবিষ্যতে হয়তো তারা নাগরিকত্ত্ব পেয়ে যাবে। কেউ কেউ হয়ত এদের মধ্যে সফল আবার কেউবা অসফল। উত্তর ইউরোপের বালটিক সাগর পাড়ের দেশ এস্তোনিয়ার নাম হয়তো আমরা জানিই না। অথচ এই দেশটি পৃথিবীর একমাত্র ডিজিটাল দেশ যাদের প্রেসেডেন্সিয়াল ইলেকশনের ভোট হয় অনলাইনে। এছাড়া এদের রয়েছে বৃহত্তম ই-লাইব্রেরী। চমৎকার এই দেশটির জনসংখ্যা মাত্র ১৩ লাখ। দেশটির প্রতিবেশী দেশ হচ্ছে ফিনল্যান্ড, সুইডেন ও লাটভিয়া। ইইউ ও সেনজেনভুক্ত এই দেশটি বসবাসের অন্যতম। মজার ব্যাপার হলো এটি ইউরোপের একমাত্র দেশ যেখানে পাবলিক ট্রান্সপোর্ট ফ্রি। অর্থাৎ যানবাহনের জন্য আপনার একটি ইউরোও গুনতে হবে না।
কেন যাবেন এস্তোনিয়াঃ
১) বাংলাদেশের অনেক প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি থেকে টিউশন ফি তুলনামূলক কম।
২) টিউশন ফি আপনি নিজেই দিতে পারবেন পার্ট টাইম জব করে। এমনকি পরিবারকেও আর্থিক সহায়তা করতে পারবেন।
৩) পড়াশোনা শেষ করলে পার্মানেন্ট রেসিডেস্ন পারমিট বা নাগরিকত্ত্বের সুযোগ।
৪) আন্তর্জাতিক মানের ইউরোপিয়ান ডিগ্রী এবং সেই সাথে খুলে যাবে ইউরোপের দরজা।
৫) লিভিং এক্সপেন্স অন্যান্য ইউরোপিয়ান দেশগুলো থেকে অনেক কম।
৬) ভিসা প্রসেসিং সহজ এবং দ্রুততর। ভিসা পাওয়ার হার ৯৭% ।
৭) ব্যাংক সলভেন্সি অনেক কম দেখানো লাগে মাত্র ৫ লক্ষ টাকা অথচ ইউরোপের অন্যান্য দেশে দেখাতে হয় প্রায় ১০ লক্ষ টাকা।
৮) IELTS স্কোর ৫.৫ ব্যাচেলরের ক্ষেত্রে। মাস্টার্স প্রোগ্রামের ক্ষেত্রে যদি তার ব্যাচেলর ইংরেজী মাধ্যামে হয় তাহলে তাদের ক্ষেত্রে IELTS লাগবে না।
৯) এস্তোনিয়ায় পাবলিক যানবাহন সবার জন্য ফ্রি। অথচ ইউরোপের অন্যান্য দেশে যানবাহনের জন্য আপনার গুনতে হবে ১০০ ইউরো সর্বনিম্ন প্রতি মাসে।
১০) কোন ধরণের ভিসা ছাড়াই ভ্রমণ করতে পারবেন ইউরোপের ২৬ টি দেশে।

 

সব কিছুর আপডেট পেতে চোখ রাখুন আমাদের ফেইসবুক পেইজে ।।


আরও জানতে VIDEO টি দেখুন.চানেলটি SUBSCRIBE করতে ভুলবেননা PLEASE::



loading...