জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ৪ বছর মেয়াদী বি.বি.এ (প্রফেশনাল) কোর্স ও ক্যারিয়ার

বর্তমানে একজন শিক্ষার্থী বিবিএ পড়তে আগ্রহী হওয়ার পেছনে যে কারণগুলো আছে তার একটি হলো এ ক্ষেত্রে চাকরির ক্ষেত্রে প্রসার লাভ করা। এক্ষেত্রে সৃজনশীলতাকে কাজে লাগানোর সুযোগ থাকায় শিক্ষার্থীরা নিজেদের উদ্ভাবনী ক্ষমতা কাজে লাগিয়ে ব্যবসাবাণিজ্যের জগতে নানা পরিবর্তন নিয়ে আসছেন। চাকরির বাজারে বিবিএ শিক্ষার্থীদের জন্য ব্যাংক, বীমাসহ বিভিন্ন সরকারিবেসরকারি আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের হিসাব বিভাগ, নিরীক্ষা বিভাগ, ট্যাক্স, আর্থিক প্রশাসন, আর্থিক ব্যবস্থাপনা বিভাগে কাজের সুযোগ রয়েছে। এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবেও চাহিদা রয়েছে বিবিএ ডিগ্রীধারীদের। আবার যারা ব্যবসা করতে পছন্দ করেন বিভিন্ন উদ্যোক্তা হয়ে তারা কাজ করে সাফল্য লাভ করতে পারেন। বিবিএ শিক্ষার্থীরা ব্যবসার বিভিন্ন শাখায় জ্ঞানলাভ করতে পারেন যেখানে অন্য কোর্সগুলোর ক্ষেত্রে দেখা যায় তারা একটি কিংবা দু’টি বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করেন।



তবে চাকরী পাওয়ার নিশ্চয়তা নির্ভর করে একজন শিক্ষার্থীর জ্ঞান ও প্রজ্ঞার ওপর। তাই বিবিএ সনদ একজন শিক্ষার্থীর চাকরি পাওয়ার নিশ্চয়তা নয় বরং চাকরির প্রতিযোগিতামূলক বাজারে প্রবেশের ছাড়পত্র মাত্র।

বিবিএ কোর্সে প্রতিটি শিক্ষার্থীকে ন্যূনতম ৪০টি কোর্স সম্পন্ন করতে হয়। এতগুলো বিষয়ে জ্ঞান থাকার ফলে পরবর্তী সময়ে তারা ব্যবসাবাণিজ্য বেশ দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করতে পারেন। বিবিএ পড়ুয়াদের বিষয়ভিত্তিক জ্ঞান থাকতে হবে স্বচ্ছ ও নির্ভুল। আধুনিক যুগের চাহিদা ও আন্তর্জাতিক শিক্ষার মানের সাথে তাল মিলিয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় চালু করে বিবিএ(অনার্স) প্রফেশনাল কোর্স।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এই কোর্সটি চালু করার মাধ্যমে বাংলাদেশের বাণিজ্য বিভাগের শিক্ষা ব্যবস্থাকে আন্তর্জাতিক শিক্ষা ব্যবস্থার সাথে পরিচয় করিয়ে দেয় কারণ আমরা আমাদের দেশে যে বিবিএ(অনার্স) প্রফেশনাল কোর্সটি করি তা বিদেশী নামকরা বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতেও পড়ানো হয়। বিবিএ (অনার্স) জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ৪ বছর(৮ সেমিস্টার) মেয়াদী একটি কোর্স যার বিষয়গুলো হল হিসাব বিজ্ঞান, ব্যবস্থাপনা এবং মার্কেটিং ও ফিন্যান্স। কোর্সটি পুরোপরি ইংরেজি মাধ্যমে।

সুবিধা সমূহ

বাংলাদেশে দু’ধরণের বিবিএ কোর্স রয়েছে। একটি একাডেমিক ও অন্যটি প্রফেশনাল। সকল পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে একাডেমিক বিবিএ (অনার্স) পড়ানো হয়। শুধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয়ের আইবিএতে এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রফেশনাল বিবিএ পড়ানো হয় যেখানে অনার্স শেষে ৩মাস ব্যাপী ইন্টার্নশিপ করার সুযোগ পায় শিক্ষার্থীরা। ফলে চাকরিতে প্রবেশের আগেই অভিজ্ঞতায় সমৃদ্ধ হন তারা। এই কোর্সে কোন সেসনজট নেই(জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ক্যালেন্ডার অনুসারে) এবং নির্দিষ্ট সময়ের বাইরে বেশি সময় ব্যয় করতে হয় না। ব্যাংকিং সেক্টর বা অন্যান্য চাকরির ক্ষেত্রে রয়েছে এর ব্যাপক চাহিদা। এই কোর্স সম্পন্ন করার পর এক বছরের এম.বি.এ করার সুযোগ পাবেন শিক্ষার্থীরা। কোর্সটি পুরোপুরি ইংরেজী মাধ্যমে হওয়াতে চাকরীর ক্ষেত্রে মূল্যায়ন করা হয় বেশি। যেকোন বিভাগের ছাত্রছাত্রীরা এই কোর্সে ভর্তি হতে পারেন।

বিবিএ কোর্সে ভর্তির সতর্কতা


loading...

চট্টগ্রামে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ কোর্সে ভর্তি হলেও সেসকল প্রতিষ্ঠান জাতীয় বিশ্ববিদ্যাল এর অনুমোদিত স্থানে কার্যক্রম চালাচ্ছে না। এছাড়া ভর্তির ক্ষেত্রেও ভর্তি নীতিমালা মানছে না এবং ভর্তির সময় বিভিন্ন প্রলোভন/টিউশন ফি ছাড় সহ অভিজ্ঞ শিক্ষক মন্ডলী দিয়ে ক্লাস পরিচালনা করার আশ্বাস দিলেও পরবর্তীতে তা করছে না। ফলে পরবর্তীতে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সমস্যায় পতিত হয়ে তাদের শিক্ষা জীবন অসমাপ্ত রেখে বিপথে চালিত হচ্ছে।




এটি কাটিয়ে উঠার জন্য যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিবিএ তে ভর্তি হবে তাঁর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন আছে কিনা এবং ভর্তির ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক প্রেরিত যোগ্যতা অনুযায়ী ভর্তি করায় কিনা, জাতীয় বিশ্বদ্যিালয়ের ওয়েব সাইট এবং ডারেক্টরিতে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ঠিকানা, ছাত্রছাত্রীদের সংখ্যা ও রেজাল্ট কি রকম তা ভালভাবে দেখতে হবে। এক্ষেত্রে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েব সাইট এবং ডাইরী ডারেক্টরিতে(পৃষ্ঠা নং১৯৯ ও ২০০) সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ঠিকানা, ছাত্রছাত্রীদের সংখ্যা ও রেজাল্ট কি রকম তা ভালভাবে পর্যবেক্ষন করে ভর্তি হওয়া জরুরি।



ভর্তির যোগ্যতা ও খরচ

এস.এস.সি ও এইচ.এস.সি সমমান পরীক্ষায় ন্যূনতম জিপিএ ২.৫০ পেয়ে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা ৪ বছর মেয়াদী এই কোর্সে ২০17২০18 শিক্ষাবর্ষে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন। কোর্সটির মাসিক বেতন ১০০০/-



নগরীর অন্যতম শিক্ষার পরিবেশ ও যাতায়াত সুবিধা সম্পন্ন লালখাঁন বাজারস্থ নিউরাল ইন্সটিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সারাদেশের ৬১টি ইন্সটিটিউট এর মধ্যে সর্বোচ্চ শিক্ষামান বজায় রেখে বিগত ১২ বছর ধরে এন.সি.সি এডুকেশন, বিবিএ কোর্স পরিচালনা করছে। সুষ্ঠু শিক্ষানুকূল পরিবেশ, মানসম্পন্ন শিক্ষক শিক্ষিকা, সর্বোত্তম কারিগরি সুবিধা, সুচারু প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা, প্রকৃত মেধা ও মনন বিকাশের সুকঠিন লক্ষ্যে ১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত এই প্রতিষ্ঠানে বিবিএ কোর্সের পাশাপাশি এন.সি.সি এডুকেশনের অধীনে কম্পিউটার সায়েন্সের উপর বি.এস.সি(অনার্স) এবং বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে কম্পিউটার, ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রনিক্স টেকনোলজিতে ৪ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স সমূহ পরিচালনা করছে।

loading…



বর্তমানে অত্র প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন বিষয়ে ৭০০ এর অধিক শিক্ষার্থী ডিগ্রী নিয়ে যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকা, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে চাকরির পাশাপাশি ক্রেডিট ট্রান্সফারের মাধ্যমে দেশে বিদেশে বিভিন্ন সুপ্রতিষ্ঠত বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করছে।



বর্তমানে ২০17
২০18 শিক্ষাবর্ষে বিবিএ সেসনে ভর্তি চলছে প্রতিদিন সকাল ৮.০০ থেকে বিকেল ৩.০০ মধ্যে নিউরালের লালখাঁন বাজারস্থ ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ ভর্তি হতে পারবে। এছাড়া তথ্যের জন্য ০১৭১১৭৬২৩৮২, ০১৯৭১৭৬২৩৮২, ০১৭১১৮৬১৫৭৪ এবং ০৩১৬৩৯০৬৮ নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারবেন। বিস্তারিত জানার জন্য www.nu.edu.bd www.mips-neural.com ওয়েব সাইটেও ভিজিট করা যাবে।





আরও জানতে VIDEO টি দেখুন.চানেলটি SUBSCRIBE করতে ভুলবেননা PLEASE::

loading...