হঠাৎ ঘামছে বাসার ফ্লোর, দেশজুড়ে আলোচনা

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হঠাৎ করেই বাসা-বাড়ির ফ্লোর ভিজে উঠছে। বাসার ফ্লোর ও সিঁড়িতে বিন্দু বিন্দু পানি জমছে। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে অনেকেই স্ট্যাটাস দিয়েছেন। কেউ কেউ এ ঘটনায় আতঙ্কগ্রস্ত হয়েছেন। অনেকেই এটিকে ভূমিকম্পের পূর্বাভাস বলেছেন।



রাজধানীর ইস্কাটন এলাকার বাসিন্দা আদনান মাওলা বলেন, ‘অবস্থা দেখে মনে হবে, এইমাত্র কেউ পানি ফেললো ফ্লোরে।’


বরিশালের উজিরপুরের হামিদা বানু ফেসবুকে লিখেছেন, ‘ঘুম থেকে উঠেই দেখি আমাদের ঘরের প্রত্যেকটি রুমের ফ্লোর পানিতে ভিজে গেছে। কোন কিছুই বুঝতে পারছিলাম না। কিন্তু এখন শুনি আরো অনেকের ঘরেই নাকি এরকম পানি উঠেছে ফ্লোর থেকে। এমনটা হওয়ার কারণ কি ?’


শাদমান খান নামে একজন লিখেছেন, ‘ধানমন্ডি এলাকার সবার বাসার ফ্লোর ঘামছে। পরিমাণ এত বেশি যে, শুকনা কাপড় দিয়ে মুছলেই আবারো সাথে সাথে ভিজে যাচ্ছে। শুধু নিচ তলার ফ্লোর না। উপরের তলার ফ্লোরও ঘামছে। ফেসবুকে এসে কয়েকজনের পোস্ট দেখলাম তাদেরও একই অবস্থা।’



ফেসবুকে অধিকাংশ মানুষ এ ঘটনার বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা চেয়েছেন। এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, বৃষ্টির কারণে বাতাসের আদ্রতা বেড়ে গেলে অনেক সময় এ ধরনের পরিস্থিতি হতে পারে। আবার কয়েকদিন টানা বৃষ্টি হলেও এটি হতে পারে।



ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক দিলারা জাহিদ বলেন, এ ঘটনার সাথে ভূমিকম্প বা জলবায়ু পরিবর্তনের কোন সম্পর্ক নেই। এ ঘটনাকে স্বাভাবিক প্রাকৃতিক ঘটনা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

loading…



তিনি বলেন, বাতাসে আর্দ্রতার পরিমাণ অনেক বেশি হলে বাষ্প দেয়াল ও মেঝেতে লেগে ঘামের মতো মনে হয়। গ্লাসে বরফ রাখলে গ্লাসের বাইরে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। সেখানেও বিন্দু বিন্দু পানি জমতে থাকে। এছাড়া অন্য কারণ নেই।



আবহাওয়াবিদ বজলুর রশীদ বলেন, হুট করে তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় ঘরের মেঝে ঘামছে। কয়েকদিন থেকে বৃষ্টির ফলে তাপমাত্রা নিচে নেমে গিয়েছিল। এখন বাড়ছে। শীতের দিন শীতাতপনিয়ন্ত্রিত গাড়ির ভেতরও ঘেমে যায়। এর কারণ তাপমাত্রার তারতম্য।

loading...